৫ অর্থনৈতিক অঞ্চল পাচ্ছে টেলিকম সুবিধা

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিটিসিএল
ফাইল ছবি

বিনিয়োগকারীদের কথা বিবেচনা করে দেশের পাঁচটি অর্থনৈতিক অঞ্চলে টেলিকম সুবিধা নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। বর্তমানে মৌলভীবাজারের শ্রীহট্ট, টেকনাফের সাবরাং ও নাফ, মহেশখালীর সোনাদিয়া এবং জামালপুরের অর্থনৈতিক অঞ্চলে টেলিকম সুবিধা নেই।

বিটিসিএল মনে করছে, এই অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে যখন উদ্যোক্তা, শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো কার্যক্রম শুরু করবে তখন টেলিফোন এবং ইন্টারনেট সুবিধার প্রয়োজন হবে। এই গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপনের প্রয়োজন মনে করছে সরকার। বর্তমানে টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিটিসিএল এর বিস্তৃত অভিজ্ঞতা রয়েছে। যা কাজে লাগিয়ে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রয়োজনীয় সেবা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

পরিকল্পনা কমিশন জানায়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ/ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ‘অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপন (১ম পর্যায়)’ প্রকল্পটি অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৯৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন ২০২৩ সালে এটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল)।

প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রম হচ্ছে- উচ্চ ক্ষমতার অপটিক্যাল ফাইবার ট্রান্সমিশন লিংক স্থাপন, অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে আধুনিক সুবিধা সম্বলিত ৬ হাজার সংযোগ ক্যাপাসিটির টেলিকম এক্সচেঞ্জ স্থাপন, উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা প্রদানে ব্যাকআপসহ রাউটার, সুইচ ইত্যাদি আইপি ইকুইপমেন্ট স্থাপন, সার্বক্ষণিক সেবা প্রদান এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি স্থাপনের নিমিত্ত প্রতিটি অর্থনৈতিক অঞ্চলে ১টি করে টেলিকম ভবন নির্মাণ।

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার অধ্যায় ২ এর অনুচ্ছেদ-২.২ (ঞ) এ উল্লিখিত শতভাগ টেলিঘনত্ব ও ইন্টারনেট বিস্তার, অধ্যায় ৬ এর অনুচ্ছেদ ৬.৪ এ উল্লিখিত ব্যয় সাশ্রয়ী টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্কের উন্নয়ন ও স্থাপন এবং এসডিজি এর ৯.গ এবং ১৭.৮ নং এ উল্লিখিত লক্ষ্যমাত্রায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উৎকর্ষতা সাধনে প্রকল্পটি ভূমিকা রাখবে। সে বিবেচনায় সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের সঙ্গে প্রকল্পটির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সংগতিপূর্ণ।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য মো. মামুন-আল-রশীদ বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গতি সঞ্চারের নিমিত্ত মৌলভীবাজারের শ্রীহট্ট, টেকনাফের সাবরাং ও নাফ এবং মহেশখালীর সোনাদিয়া ট্যুরিজম পার্কসহ জামালপুর অর্থনৈতিক অঞ্চলে আধুনিক ও উচ্চগতির টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপন সম্ভব হবে। এ অবস্থায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ থেকে প্রস্তাবিত ‘অর্থনৈতিক অঞ্চলসমূহে টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপন (১ম পর্যায়)’ শীর্ষক প্রকল্পটি সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে বাস্তবায়নের লক্ষে একনেকে অনুমোদিত হয়েছে।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •