ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে হেফাজতের তাণ্ডবের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাবি

গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুর্বণজয়ন্তীর দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ সারাদেশে ধর্মভিত্তিক উগ্রবাদী সংগঠন হেফাজতে ইসলাম কর্তৃক সংঘটিত নারকীয় তাণ্ডবের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ক্ষোভ জানিয়ে আনীত প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে পাশ হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট অধিবেশনে।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে আয়োজিত সিনেট অধিবেশনে নিন্দা প্রস্তাবের উত্থাপন করেন ঢাবি সিনেটের সদস্য এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা র. আ. ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি। এসময় অন্যান্য সদস্যরাও নিন্দা প্রস্তাবটির প্রতি সমর্থন জানান।

universel cardiac hospital

এদিকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে আয়োজিত এই অধিবেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৮৩১ কোটি ৭৯ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদন করা হয়েছে। এবার বাজেটে গবেষণা খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১১ কোটি ১২ লাখ টাকা। যা মোট বাজেটের ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

আর বরাবরের মতো এবারও বাজেটে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ সর্বোচ্চ ৬১১ কোটি ৮৯ লাখ ৬৫ হাজার টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। যা মোট বাজেটের ৭৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

অধিবেশনে বাজেট পেশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দীন আহমেদ। অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সিনেটের চেয়ারম্যান উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান।

এছাড়া উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এনামউজজামানসহ সিনেট সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। তবে সিনেটের সদস্য পদের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় এ অধিবেশনে কোনো শিক্ষক প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না।

জানা গেছে, মোট বাজেট ৮৩১ কোটি ৭৯ লাখ টাকার মধ্যে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ সর্বোচ্চ ৬১১ কোটি ৮৯ লাখ ৬৫ হাজার টাকা বরাদ্দ ধরা হয়েছে। যা মোট বাজেটের ৭৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ। অন্যদিকে গবেষণা খাতে বরাদ্দ রাখা হযেছে ১১ কোটি ১২ লাখ টাকা। যা মোট বাজেটের ১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

বাজেটে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) থেকে পাওয়া অনুদান দেখানো হয় ৬৯৬ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। বাজেটে ঘাটতি দেখানো হয়েছে ৭০ কোটি ২৫ লাখ টাকা, যা প্রাক্কলিত ব্যয়ের ৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ। বাজেটে পণ্য ও সেবা খাত বাবদ ১৬৮ কোটি ৮ লাখ ৩৫ হাজার, যা মোট ব্যয়ের ২০ দশমিক ২০ শতাংশ, মূলধন খাতে ২১ কোটি ৬৯ লাখ টাকা, যা মোট ব্যয়ের ২ দশমিক ৬১ শতাংশ।

তবে বিগত বছরগুলোর চেয়ে এবার বাজেটের আকার কমেছে। গতবছর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট বরাদ্দ ছিল ৮৬৯ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। এবারের বাজেটে বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনাকালীন পরিস্থিতি মোকাবিলায় ইউজিসি থেকে কোনো বরাদ্দ রাখা হয়নি। তবে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সামান্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনার দাবি

এদিকে, সিনেট অধিবেশনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক-অনাবাসিক সব শিক্ষার্থীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে টিকার আওতায় এনে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন ছাত্র প্রতিনিধিরা।

একইসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের সময়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হলের আবাসিক ফি, পরিবহন ফি মওকুফ, ডাকসু নির্বাচনের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে বিনা কারণে পুলিশ কর্তৃক শিক্ষার্থীদের ধরে নিয়ে যাওয়া রোধ করা, অছাত্রদের হলে থাকতে না দেয়া ও ‘সাময়িক বহিস্কারের’ সময়সীমা বেধে দেয়ার বিষয়ে প্রস্তাব করেন তারা।

শেয়ার করুন
  • 730
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    730
    Shares