তুরস্ককে কাঁদিয়ে সেমিতে নেদারল্যান্ডস

ক্রীড়া ডেস্ক

খেলার যখন ২০ মিনিটের মতো বাকি, তখনও ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে তুরস্ক। সেই জায়গা থেকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ালো নেদারল্যান্ডস। ছয় মিনিটের ঝড়ে দুই গোল করে তুর্কিদের বিদায় করে দিলো ডাচরা।

ইউরো কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে রোমাঞ্চকর এক লড়াইয়ে তুরস্ককে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে সেমিফাইনালে নাম লিখিয়েছে নেদারল্যান্ডস।

universel cardiac hospital

বার্লিনে শুরু থেকেই আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে জমে উঠে ম্যাচ। দুই মিনিটের মাথায় নেদারল্যান্ডসের মাম্পিস ডেপাইয়ের শট চলে যায় বাইরে দিয়ে। প্রথম ২০ মিনিটে ৫৪ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রাখলেও ডাচদের সব আক্রমণ তুর্কি ডি বক্সেই প্রতিহত হয়ে পড়ে।

২৯ মিনিটে বারডাকচির ভলি শট অনেক গোলবারের অনেক উপর দিয়ে চলে যায়। অবশেষে ম্যাচের প্রথম গোল আসে ৩৫ মিনিটে তুরস্কের কাছ থেকে। আর্দা গুলারের দারুণ ক্রস থেকে দুর্দান্ত হেডে গোল করে তুরস্ককে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন সামিত আকায়দিন।

৪২ মিনিটে ডাচদের স্টিভেন বারগুইন ডিবক্সের বাইরে থেকে শট নিলেও এটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। প্রথমার্ধে আর কোনো গোল না হলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় তুরস্ক।

দ্বিতীয়ার্ধে শুরুর ভাগেই ব্যবধান ২-০ করার সুযোগ এসেছিল তুরস্কের। ৫৭ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে আর্দা গুলারের বাঁকানো শট পোস্টে আঘাত হানে।

এরপরই দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় নেদারল্যান্ডস। একের পর এক আক্রমণ শানাতে থাকে তুরস্কের বক্সে। অবশেষে ছয় মিনিটের মধ্যে দুই গোল দিয়ে এগিয়ে যায় ডাচরা।

৭০ মিনিটে ডেপাইয়ের কর্নার থেকে বল পেয়ে দারুণ হেডে সমতা ফেরান স্টেফান ডি ভ্রিজ (১-১)। ৭৬ মিনিটে আত্মঘাতী গোলে ২-১ করে তারা। ডামফ্রিসের পাসে বল পেয়ে গ্যাকপো পড়ে গেলেও বুট লাগিয়ে দেন, বল জড়িয়ে যায় জালে।

তবে রিপ্লেতে দেখা যায়, গোলটি গ্যাকপোর নয়, তুরস্কের মুলডারকে স্পর্শ করে জালে ঢুকেছে। তাই সেটিকে আত্মঘাতী গোল হিসেবে ধরা হয়। ওই গোলই শেষ পর্যন্ত ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেয়।

শেয়ার করুন