সরকার নতজানু হয়ে ভারত থেকে আসা অনুপ্রবেশকারীদের গ্রহণ করছে : মওদুদ

মত ও পথ প্রতিবেদক

মওদুদ আহমদ
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ। ফাইল ছবি

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ অভিযোগ করেছেন, ক্ষমতায় থাকতে সরকার ভারতকে সব দিয়ে দিচ্ছে। সরকার নতজানু হয়ে ভারত থেকে আসা অনুপ্রবেশকারীদের গ্রহণ করছে বলেও অভিযোগ করেছেন সাবেক এই মন্ত্রী।

আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী তাঁতী দল ‘স্বাধীনতা ও ভোটাধিকার হরণ এবং খালেদা জিয়ার জামিন প্রতিহিংসার বিচারে অবরুদ্ধ’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সরকারের সমালোচনা করে মওদুদ বলেন, এই সরকার এত নতজানু হয়েছে যে, তারা সেটা গ্রহণ করে নিচ্ছেন। প্রতিবাদ করা তো দূরের কথা, তারা এটাকে গ্রহণ করে নিচ্ছে। এর থেকে লজ্জার কথা বাংলাদেশের মানুষের জন্য আর কিছু হতে পারে না। এই সরকার ক্ষমতায় থাকার জন্য ভারতকে সবকিছু দিয়ে দিয়েছে।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ভারত সরকারের নাগরিক অধিকার আইনে সবচাইতে বড় ভিকটিম হবে বাংলাদেশের মুসলমানরা। বহু বছর আগে যারা ভারতে চলে গেছেন, ভারতের নাগরিক হয়েছেন, ভোটার হয়েছেন, ভোট দিয়েছেন, আজ তাদের অনুপ্রবেশকারী হিসেবে আমাদের দেশে ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছে।

সিটি নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভয়-ভীতি গ্রেপ্তার আতঙ্ক চলছে একদিকে, অন্যদিকে নির্বাচনী প্রচারণা চলছে। এগুলো লোক দেখানো। এই নির্বাচন গণতন্ত্রের প্রহসন ছাড়া কিছু নয়। এই নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করছি। কারণ, আমরা জনগণের একটি রাজনৈতিক দল। আমরা মনে করি, যদি দেশের মানুষ ভোট দিতে পারে, এই সিটি নির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থীরা বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের পরাজিত করবে। কিন্তু সেটা তারা করতে দেবে না, এটা আমরা জানি। গণতন্ত্রের যে মৃত্যু ঘটেছে এই দেশে, এটা সরকার এই নির্বাচনের মাধ্যমে আবারো প্রমাণ করবে।

মওদুদ বলেন, রাজনৈতিক সংকট অনেক আগে থেকেই ছিল। কিন্তু ২০১৯ সালে এসে সেই সংকট আরও ঘনীভূত হয়েছে। গত বছর সরকার রাষ্ট্র পরিচালনায় সম্পূর্ণ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, ওলামা দলের আহ্বায়ক হাফেজ মাওলানা শাহ মোহাম্মদ নেসারুল হক, তাঁতী দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here