ক্রিকেটাররা করোনা শেষে ডিপিএল চায়

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারণে স্থগিত হয়ে গেছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল)। তবে এ মহামারী শেষে পুনরায় ডিপিএল মৌসুম শুরু করতে চায় ক্রিকেটাররা। তবে চলতি মৌসুমে লিগ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্টোপলিশ (সিসিডিএম)।

ঢাকা ভিত্তিক ক্লাবগুলোর অভিভাবক সিসিডিএম জানায়, যদি জুনের মধ্যে নাটকীয়ভাবে করোনা ভাইরাসের উন্নতি না হয় তবে এই মৌসুমে লিগ চালানো কঠিনই হবে।

সিসিডিএম সদস্য সচিব আলী হোসেন বলেছেন, ‘সাধারণত জুলাইয়ের মধ্যে যেকোনো মৌসুমের লিগ শেষ করতে আমরা বাধ্য। যদি আমরা জুনে কিংবা জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে লিগ পুনরায় শুরু করতে না পারি, তবে এটি আরও কঠিন হবে। বর্তমান পরিস্থিতির উন্নতি কখন ঘটবে আমরা জানি না। আমরা কেবল অপেক্ষা করতে পারি।’

অনেক খেলোয়াড়ের কাছেই এই লিগ রুটি-রুজির। এই লিগটির জন্য সারা বছর অপেক্ষা করে থাকা ক্রিকেটাররা নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন।

বিসিবির নিয়মানুসারে ডিপিএলের ক্রিকেটাররা তিন ভাগে পারিশ্রমিক পাওয়ার কথা। নিয়নুযায়ী লিগ শুরুর আগে কিংবা শুরুর পরপরই চুক্তিবদ্ধ অর্থের ৩০ শতাংশ পাওয়ার কথা খেলোয়াড়দের।

এবারের মৌসুমে ব্রাদার্স ইউনিয়নের পক্ষে খেলা দেশের সিনিয়র ক্রিকেটার তুষার ইমরান জানান, এখনো প্রথম অংশের টাকাই পাননি তিনি।

তুষার ইমরান বলেছেন, ‘আমি যতটুকু জানি, চার বা পাঁচটি ক্লাব এখনো চুক্তি অনুযায়ী তাদের প্রথম অংশটিই খেলোয়াড়দের দেয়নি। এমনকি আমার ক্লাবও থেকেও প্রথম ধাপের টাকা আমি পাইনি।’

আবাহনী লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক, প্রাইম দোলেশ্বর, মোহামেডানসহ বড় কয়েকটি ক্লাব ইতোমধ্যে অর্থ প্রদান করেছে বলে জানান ক্রিকেটাররা।

বিসিবি ইতোমধ্যে, একাকালীন ৩০ হাজার টাকা করে খেলোয়াড়দের সহায়তা দিয়েছে। কিন্তু যারা এই ডিপিএলের এক মৌসুমের অর্থ দিয়ে সারা বছর চলেন, তাদের জন্য এই অঙ্ক খুবই সামান্য।

কিন্তু মহামারী শেষে যদি লিগ পুনরায় না শুরু করা যায়, তবে সিসিডিএম কি করবে, তা এখনো জানে না।

আলী হাসান বলেন, ‘আমি জানি না কি হবে, জুলাইয়ের আগে লিগ শুরু না হলেও সিসিডিএম ক্লাবগুলোর সাথে বসবে। ক্লাবগুলোর সাথে আলোচনা শেষে আমাদের সিদ্ধান্ত বিসিবিতে পাঠানো হবে, তারা চূড়ান্ত সিদ্বান্ত নিবেন।’

এমন পুরোপুরি অনিশ্চিত পরিস্থিতির মধ্যে তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের মতো দেশের সিনিয়র ক্রিকেটাররা মহামারী শেষে ডিপিএল পুনরায় শুরুর উপর জোর দিয়েছেন।

শনিবার রাতে মুশফিকের সাথে ইনস্টাগ্রাম লাইভে তামিম জানান, ‘সবাই জানে, খেলোয়াড়দের জন্য ডিপিএল কতটা গুরুত্বপূর্ণ। ইতোমধ্যে ডিপিএলের এক রাউন্ড শেষ হয়েছে। আমার মনে হয়, মহামারী শেষে ডিপিএল পুনরায় শুরু হলে, খেলোয়াড়দের উপকার হবে।’

তামিম মনে করেন, এই লিগ থেকেই বেশিরভাগ খেলোয়াড়দের উপার্জন এসে থাকে। তাই লিগটি শুরু করা উচিত।

তামিম বলেন, ‘আমরা জানি, এই ডিপিএলের উপার্জন থেকেই বেশিরভাগ খেলোয়াড় তাদের পরিবারের ব্যয় বহন করে থাকে। এই মুহূর্তে তাদের অবস্থা মোটেও ভালো নয়। তাই আমি মনে করি, ডিপিএল শুরু করা জরুরি।’

তামিমের বিশ্বাস বিসিবিও একই চিন্তা করছে। তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, বিসিবি খেলোয়াড়দের দুর্ভোগ সর্ম্পকে সচেতন এবং ডিপিএলের গুরুত্ব বুঝবে। বিসিবি যেহেতু এখনো কোন কিছু ঘোষণা করেনি। আমি মনে করি, ডিপিএল দিয়েই মৌসুম শুরু হবে।’

মুশফিকও একই মত পোষণ করেন। তিনি জানান, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রস্তুতি এবং খেলোয়াড়দের পরিবারের ব্যয় বহনের জন্যও ডিপিএল দরকার।

মুশফিক বলেন, ‘আমি মনে করি না যে, ডিপিএলের গুরুত্ব সর্ম্পকে আমাকে স্মরণ করিয়ে দিকে হবে। আমরা চাই, করোনা ভাইরাস শেষে আবারো ডিপিএল শুরু হোক। আমরা জানি, সামনে আমাদের অনেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আছে। তাই আমাদের চূড়ান্ত চ্যালেঞ্জে প্রস্তুতের জন্যও ডিপিএল দরকার।’

শেয়ার করুন
  • 11
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    11
    Shares

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে