তামিম ইকবাল : বিশ্বের অন্যতম সেরা ওপেনার হয়ে উঠার গল্প

ক্রীড়া ডেস্ক

তামিম ইকবাল খান (জন্ম: ২০ মার্চ, ১৯৮৯) চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশি ক্রিকেটার। তিনি শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেন। ২০১৫ সালে তিনি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৪০০০ রান সংগ্রহকারী দ্বিতীয় বাংলাদেশি ক্রিকেটার এবং ২০১৬ মোতাবেক ওডিআইতে ৫০০০ রান এবং ২০১৮ মোতাবেক ৬০০০ রান সংগ্রহকারী প্রথম বাংলাদেশি। মুশফিকুর রহিমের পর তামিম ইকবাল বাংলাদেশের ২য় ক্রিকেটার হিসাবে টেস্টে দ্বি-শতক রান করেছেন৷

তাছাড়াও ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ওমানের বিপক্ষে ১ম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে শত রান করেছেন এবং প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টি-টোয়েন্টি ইন্টারন্যাশনালে এক হাজার রান সংগ্রহ করেন।

২০০৭ সালের তামিম ইকবাল এবং ২০১৯ সালের তামিম ইকবাল- ব্যাটিংয়ে বড় ধরনের পার্থক্য লক্ষ্যণীয় তার।

২০০৭ সালের তামিম ইকবালের কথা বললে অনায়াসে দৃশ্যপটে আসে পোর্ট অফ স্পেনে জহির খানের বল উড়িয়ে মারা।

ভারতের বিপক্ষে সেই অর্ধশতক তামিম ইকবালের ক্যারিয়ারের অন্যতম হাইলাইটস।

২০০৭ বিশ্বকাপে তামিমকে আউট করার পর ভারতীয় শিবিরে বিজয় উল্লাস

কিন্তু সেই তামিম ইকবালের সাথে বর্তমান তামিম ইকবালের মূল পার্থক্য আগ্রাসী মনোভাবে।

তামিমের তৎকালীন ওপেনিং পার্টনার শাহরিয়ার নাফিস বলেন, তামিম এখন যে ব্যাটিং করছেন সেটা অবশ্যই ইতিবাচক, সে তার স্বাভাবিক ব্যাটিং দিয়ে ৮০ থেকে ৯০ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করছে। এখানে বুঝতে হবে কার ভূমিকা কী। আমি যখন তামিমের সিনিয়র পার্টনার হিসেবে মাঠে নামতাম, আমার রোল ছিল একটু ধরে খেলা, তামিম তখন এগ্রেসিভ ছিল।

শাহরিয়ার নাফিস মনে করেন, সৌম্য এখন যেভাবে ব্যাট করছে, সেটা তামিমকে ইনিংস গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করে, এটা ইনিংসে একটা ভিত গড়ে দেয়।

যেভাবে বদলেছে তামিম ইকবালের ব্যাটিং

২০০৭ সালের তামিম ইকবালের রানের গড় ছিল ২১.৫৭। আর ২০১৮ সালে তামিমের গড় ১২ ম্যাচে ৮৫.৫০ রান।

২০১০ সালে তামিম ইকবালের স্ট্রাইক রেট ছিল ৯৬.১৬।

২০১৫, ২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮ এ চার বছরের মধ্যে তামিম ইকবালের সর্বোচ্চ স্ট্রাইক রেট ৮৩.১৪।

কিন্তু এই চার বছরে তামিম ইকবালের ব্যাটিং গড় ৪০-এর নিচে নামেনি, সর্বনিম্ন ছিল ৪৫.২২, সর্বোচ্চ ৮৫.৫০ রান।

ব্যাটিংয়ের মারকুটে ভাব আগের মতো না থাকলেও তামিম ইকবাল গড়ের দিক থেকে এখন বিশ্বের অন্যতম সেরা ওপেনিং ব্যাটসম্যান।

যা বলছেন তামিমের শৈশবের গুরু

বয়সভিত্তিক দলগুলোতে তামিম ইকবালের গুরু ছিলেন নাজমুল আবেদীন ফাহিম। এখনো ব্যাটিং টেকনিক সংক্রান্ত কোনো সমস্যায় তামিম ‘ফাহিম স্যারের’ দ্বারস্থ হন বলে শোনা যায়।

তামিম ইকবালের ব্যাটিং পরিবর্তন নিয়ে জানতে চাইলে নাজমুল আবেদীন ফাহিম বলেন, এখনকার কথা বলতে গেলে তামিমের ব্যাটিংয়ের ধরণ ইতিবাচক। টপ অর্ডারে যারা আছেন তাদের সাথে তামিম যখন খেলে তখন এটা ঠিকই আছে। সৌম্য, লিটন, মুশফিক, সাকিব এরা সবাই বেশ দ্রুত গতিতে রান করেন।

লর্ডসে সেঞ্চুরি উদযাপন মুহুর্তে তামিম

এটা ট্যাকটিকালি বেশ ভালো, সেটাই এখন তামিম করছেন যেটা দলের জন্যও উপকারে আসছে, বলছিলেন নাজমুল আবেদীন ফাহিম।

তামিমের উত্থানের গল্প

তামিম ইকবাল ২০০৫ সালে বাংলাদেশের অনুর্ধ্ব ১৯ দলের হয়ে খেলেন। সেই বার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৭১ বলে ১১২ রানের একটি ইনিংস খেলেন। বাংলাদেশ ক্রিকেটে সজোরে ব্যাট করার ক্ষেত্রে তামিম ইকবালকে তখন থেকেই দক্ষ মনে করা হতো। বিশেষত অফ-সাইডে তামিম ইকবালের ব্যাটিং ক্রিকেটভক্তদের মুগ্ধ করেছে।

তামিম -বিরাট কোহলি

২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে অভিষেক হয় তামিম ইকবালের। টেস্ট অভিষেকে নিউজিল্যান্ডের ডানেডিনে তিনি ৮৪ রানের একটি ইনিংস খেলেন।

তামিম ইকবাল ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে এক ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৫৪ রানের মালিক।

২০১৫ বিশ্বকাপ পর্যন্ত ধারাবাহিক না হওয়ার কারণে দলে তামিম ইকবালের অন্তর্ভূক্তি নিয়ে নানা কথা উঠলেও তামিম ইকবাল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ব্যাটিং স্তম্ভ হিসেবে সুপরিচিত এখন।

শেয়ার করুন
  • 414
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    414
    Shares

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে