৫ বিলিয়ন ডলারের চামড়াজাত পণ্য রফতানির টার্গেট সরকারের

বিশেষ প্রতিবেদক

চামড়াজাত পণ্য
চামড়াজাত পণ্য। ফাইল ছবি

চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য উন্নয়ন নীতিমালা-২০১৯-এর খসড়ার মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হয়েছে। আজ সোমবার এ আইনের খসড়া মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, সভায় মোট ছয়টি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তার মধ্যে মন্ত্রিসভায় চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য উন্নয়ন নীতিমালা-২০১৯-এর খসড়ার অনুমোদন হয়েছে।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ সব কথা বলেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মন্ত্রিসভায় চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য উন্নয়ন নীতিমালা-২০১৯-এর খসড়ার অনুমোদন হয়েছে। রফতানি পণ্যের ক্ষেত্রে চামড়া বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী দ্বিতীয় খাত। ২০২৪ সাল নাগাদ আশা করছি ৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করতে সক্ষম হব। এই টার্গেট নিয়ে কাজ করছি।

এই নীতিমালার আলোকে ট্যানারি শিল্প মালিকদের ঋণ পাওয়ার সুবিধা হবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব বলেন, এই নীতিমালার আলোকে ট্যানারি শিল্প মালিকদের ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সুবিধা হবে। পণ্য উৎপাদনে আন্তর্জাতিকমান বজায় রাখা সহজ হবে। দক্ষ ও কার্যকর সেক্টর গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

এই নীতিমালার আওতায় শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের উন্নয়ন নীতিমালা পরিষদ নামে ৪১ সদস্যের একটি পরিষদ গঠন করা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিল্পমন্ত্রীর নেতৃত্বে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের উন্নয়ন নীতিমালা পরিষদ নামে ৪১ সদস্যের একটি পরিষদ গঠন করা হবে। শিল্প সচিবের নেতৃত্বে চামড়া এ চামড়াজাত পণ্যের নীতিমালা বাস্তবায়ন পরিষদ থাকবে। এর সদস্য সংখ্যা ২০ জন।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের বিষয়ে ২০১৯ সালের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন (এপ্রিল থেকে জুন) উপস্থাপন করার পর অনুমোদন হয়েছে।

এ সময় মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়েছে সাতটি। সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ৭২টি। বাস্তবায়িত হয়েছে ৫৯টি।

সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ৮১.৯৪ শতাংশ। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অপেক্ষায় আছে ১৩টি। বাস্তবায়নাধীন সিদ্ধান্তের হার ১৯.৬ শতাংশ। এই তিন মাসে অনুমোদিত নীতি/কর্ম কৌশল নেয়া হয়েছে একটি। এই সময়ে চুক্তি/সমঝোতা স্মারক অনুমোদন হয়েছে একটি। সংসদে আইন পাস হয়েছে ৬টি।

একই বৈঠকে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন আইন ২০১৯-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন হয়েছে। এতদিন এটি ১৯৭৩ সালের রাষ্ট্রপতির আদেশ বলে চলছিল। এখন এটা আইনে পরিণত হলো। আগের হাউস লেখার পরিবর্তে এখন হাউজ লেখা হবে।

এ আইনে নতুন করে খেলাপি ঋণের সংজ্ঞা দেয়া হয়েছে। চেয়ারম্যান ও পরিচালক যুক্ত করা হয়েছে। আগের আইনে এগুলো ছিল না। এর প্রধান অফিস হবে ঢাকায়। পরিচালকরা এক মেয়াদে তিন বছরের জন্য মনোনীত হবেন।

আইনের কোনো শর্ত ভঙ্গ করলে বা মিথ্যা বিবরণ দিয়ে ঋণ গ্রহণ করলে এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শাস্তি হবে ৫ বছরের দণ্ড এবং ৫ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড।

সূত্র মতে, কর্পোরেশনের অনুমতি ছাড়া কেউ তাদের নিজস্ব প্রসপেকটাসে নাম ব্যবহার করলে ছয় মাসের দণ্ড আর ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। কর্পোরেশনের অনুমোদিত মূলধন হবে ১ হাজার কোটি টাকা। যা আগে ছিল ১১০ কোটি টাকা। কর্পোরেশন পেইড আপ (পরিশোধিত) মূলধন ৫০০ কোটি টাকা হবে। যা আগে এটা ছিল ১১০ কোটি টাকা।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ও চেক রিপাবলিকের মধ্যে স্বাক্ষরের জন্য দ্বৈত করারোপ পরিহার ও রাজস্ব ফাঁকি রোধ সংক্রান্ত চুক্তির খসড়ার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর ফলে দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দ্বৈত কর দিতে হবে না।

প্যাটেন্ট কো-অপারেশন ট্রিটি (পিসিটি)-তে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি অনুমোদন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here